মুসরীকে হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভে উত্তাল মিশর

এক্সক্লুসিভ

মিশরের সাবেক প্রেসিডেন্ট হাফেজ ড.মুসরীকে অন্যায় ভাবে কারাগারে রেখে হত্যা করেছে দাবী করে বিক্ষোভ করেছে মুসলিম ব্রাদারহুড, রাজধানী সহ সারা দেশের বিভিন্ন স্থানে এই বিক্ষোভ করে নেতাকর্মীরা।

উল্লেখ-

আদালতের এজলাসেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন মিসরের প্রথমবারের মতগণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসি।

মুরসি কারাগারে অকালে মারা যেতে পারেন বলে আন্তর্জাতিক কয়েকটি সংস্থা আগে থেকেই সতর্ক করেছিল। কারণ হিসেবে বলা হয়েছিল, সাবেক এ প্রেসিডেন্টকে কারাবন্দি রাখার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক মানদণ্ড বজায় রাখতে ব্যর্থ হয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।

মুরসির আগাম মৃত্যুর জন্য ক্ষমতাসীন আবদেল ফাত্তাহ আল সিসিকেও দায়ী করেছিল যুক্তরাজ্যের বিশেষ স্বাধীন বন্দিত্ব পর্যালোচনা প্যানেল ইনডিপেনডেন্ট ডিটেনশান রিভিউ প্যানেল।

সোমবার আদালতে মুরসির মৃত্যর পর অনেকক্ষণ মৃত্যুর বিষয়টি গোপন রেখেছে সিসি প্রশাসন। সঠিক সময়ে মুরসির মৃত্যুর খবরও দেয়া হয়নি।
রয়টার্সের খবরে বলা হয়, আদালতের কার্যক্রম শেষ হওয়ার পর ৬৭ বছর বয়সী সাবেক এ প্রেসিডেন্ট জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।

এর কিছুক্ষণ পরই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন তিনি।
অন্যদিকে বার্তা সংস্থা এপি জানিয়েছে, আদালতে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও নথি পাচার মামলার শুনানি চলছিল। সাবেক প্রেসিডেন্ট বিচারকের কাছে কথা বলার অনুমতি চাইলে তাকে কথা বলতে অনুমতি দেয়া হয়েছিল।

এ সময় ২০ মিনিট বক্তব্য রাখেন তিনি। বক্তব্যের মধ্যেই বুকে ব্যথা অনুভব করেন মুরসি। এক পর্যায়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এ সময় দ্রুত তাকে হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানেই শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন মিসরের প্রথম নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসি।

এদিকে মিসরের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসির মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান।
সোমবার মুরসির মৃত্যুর পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এরদোগান বলেন, গাড়ি থেকে নামার সময় আমার কাছে মুরসির মৃত্যুর খবর আসে।

আমরা আল্লাহর কাছে আমাদের শহীদ ভাইদের জন্য দোয়া করছি, আল্লাহ যেন শহীদদের ওপর রহম করেন।
এরদোগান বলেন, আদালতের এজলাসেই তার মৃত্যু হয়েছে। এটি অত্যন্ত দুঃখজনক। আমি আল্লাহর কাছে রহমত কামনা করি।

 

নিশ্চিন্তে প্রশান্তির ঘুম ঘুমান মুরসী : জর্ডানের সাবেক রানি

মিশরের ইতিহাসে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে নির্বাচিত প্রথম প্রেসিডেন্ট শহীদ মুহাম্মদ মুরসীর ইন্তেকালে শোক জানিয়েছেন জর্ডানের সাবেক রানি নূর আল হুসাইন।

মঙ্গলবার রানি নূর ব্যক্তিগত টুইটারে মুরসির প্রশংসা করে লেখেন, ‘তার কিসের চিন্তা? নিশ্চিন্তে প্রশান্তির ঘুম ঘুমাক সে, তিনিই মিসরের সর্বপ্রথম এবং একমাত্র গণতান্ত্রিক প্রেসিডেন্ট।’

শহীদ মুহাম্মদ মুরসীর ইন্তেকালে শোকাহত মুসলিম বিশ্ব।

তাঁর ইন্তেকালে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা, রাষ্ট্রপ্রধান ও নেতারা শোক প্রকাশ করেছেন।

এছাড়া বিশ্বব্যাপী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতেও শোক প্রকাশ করছেন সাধারণ মানুষ।

উল্লেখ্য, অবৈধভাবে রাষ্ট্র ক্ষমতা দখলকারী ইহুদিবাদী ইসরাইল ও পশ্চিমা প্রভুদের অনুসারী মিশরের প্রেসিডেন্ট আব্দুল ফাত্তাল আল সিসির কারাগারে থাকা অবস্থায় ৬৭ বছর বয়সী মিশরের সাবেক প্রেসিডেন্ট মুহাম্মাদ মুরসী গতকাল সোমবার (১৭ জুন) ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন।