১শ বছর বয়সেও জুটেনি বয়স্ক কিংবা বিধবা ভাতা

আওয়ামী নির্যাতন, সারা দেশ

চুয়াডাঙ্গার দর্শনা পৌর এলাকার দক্ষিণ চাঁদপুর গ্রামের মৃত মল্লিকের স্ত্রী শাহারন বিবির বয়স ১শ বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো বিধবা বা বয়স্ক ভাতার কার্ড পাননি।

বয়স্ক ভাতা ও বিধবা ভাতা প্রদান সরকারের একটি ভাল উদ্যোগ। রাষ্ট্রীয় নিয়ম অনুযায়ী এই ভাতার একজন প্রকৃত দাবিদার দর্শনা পৌর এলাকার দক্ষিণ চাঁদপুর গ্রামের শতর্বষী বৃদ্ধা শাহারন বিবি।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, বাস্তবে তার বয়স একশ বছরেরও বেশি হবে। শাহারন বিবির স্বামী মল্লিক ১৯৭১ সালে মৃত্যু বরণ করেন। সংসার জীবনে শাহারন বিবির ২ছেলে ২ মেয়ে রয়েছে। মেয়েরা বিয়ে করে শ্বশুর বাড়ি চলে গেছে। ৭/৮ বছর হবে ছেলেরা বিয়ে করে শ্বশুর বাড়িতে স্ত্রী –সন্তান নিয়ে যে যার যার মতো ঘরজামাই থাকে। বৃদ্ধা মাকে কেউ খোঁজ রাখে না। নিরূপায় হয়ে অসহায় বৃদ্ধা শাহারন বিবি জীবন বাঁচানোর তাগিয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে ভিক্ষাবৃত্তি করে।

শাহারন বিবি আক্ষেপ করে বলনে, আমার দেখা কত চেয়ারম্যান-মেম্বার পরিবর্তন হলো কিন্তু আমার দিকে কেউ চেয়ে দেখলো না। তিনি আরো বলেন, বিধবা-বয়স্ক ভাতার কার্ডের জন্য পৌরমেয়র, কাউনন্সিলরের কাছে গেলেও কোনো কাজ হয়নি। তবে এখন আর তাদের কাছে যাবার শারীরিক সক্ষমতা নাই।

এ ব্যাপারে ১নং ওর্য়াড কাউন্সিলর মো: হাসান খালেকুজ্জান বলনে, এবার আমি সুধীজনদের নিয়ে সবার সম্মতিতে বাছাই করে এলাকার বিধবা ও বয়স্কদের কার্ড দিয়েছি। তবে আমি শাহারন নামের কোনো বৃদ্ধাকে চিন্তে পারছি না। আমার নলেজের বাইরে। সে হয়তো আমার ওর্য়াডের বাসিন্দা।