সাকিবের আচরণে বোর্ড প্রধানের অসন্তোষ

খেলা

আইপিএল খেলে দেশে ফিরেছেন আগের দিন। আয়ারল্যান্ড সফর ও বিশ্বকাপ মিশনে যাওয়ার আগে দেশের মাঠে আজই ছিল দলের শেষ অনুশীলন। ছিল বিশ্বকাপ স্কোয়াডের অফিসিয়াল ফটোসেশনও। কিন্তু এসবের কিছুতেই না থেকে মাঠে এসেও বেরিয়ে গিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান তাকে না পেয়ে তাই খোলামেলাভাবেই জানিয়েছেন অসন্তোষ।

১ মে আয়ারল্যান্ডের উদ্দেশে যাত্রা করবে বাংলাদেশ দল। তার আগে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে দুপুরে কথা বলেছেন অধিনায়ক মাশরাফি মর্তুজা। বিকেল তিনটায় ছিল বিশ্বকাপ দলের অফিসিয়াল ফটোসেশন। সেখানে দলের ১৪ জনই থাকলেও খুঁজে পাওয়া গেল না সাকিবকে।

আইপিএলের কারণে দেশের বিশ্বকাপ ক্যাম্পে ছিলেন না, এখন ফটোসেশনেও কেন নেই। জানতে চাইলে একরকম অসহায়ত্ব মাখা মেজাজ নিয়ে অসন্তুষ জানালেন নাজমুল, “দুখঃজনক। আর কি বলব। এটা দলের ফটোসেশন ছিল। আমি এসেই যখন ঢুকছি তখন ফোন করেছিলাম সাকিবকে। কোথায় তুমি, বলল ‘আমি তো চলে এসেছি। আপনার বাসায় আসব রাত্রে।‘ আমি বললাম এ’খনি তো দেখা হওয়ার কথা’। সে বলল ‘আমি তো বেরিয়ে গিয়েছি’। আমি এসে জিজ্ঞেস করে জানলাম যে ওকে আগেই জানানো হয়েছিল যে আজ ফটোসেশন। জাতীয় দল যাচ্ছে, একসঙ্গে ফটোসেশন। সবাই থাকবে। আশা করেছিলাম সে থাকবে, কিন্তু সে নাই।”

সাকিবের এমন না থাকায় দলের বন্ধনে প্রভাব পড়বে কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে আরও অসহায়ত্ব বোর্ড প্রধানের কণ্ঠে, “আমার মনে হয় দলের অন্যরা এতদিনে অভ্যস্ত হয়ে গেছে (সাকিবের আচরণে)। এছাড়া আর কি বলব। আমি মনে করে এটা ওর জন্যই দুর্ভাগ্য। ও যে আমাদের বিশ্বকাপ দলের সঙ্গে থাকতে পারল না ফটোসেশনে আমি মনে করি ওরই কপাল খারাপ।”

তবে সাকিবের মেজাজ মর্জি বুঝে যে বোর্ড চলবে না তাও শক্তভাবে জানিয়ে দিয়েছেন বোর্ড প্রধান। একদিন পরই দল চলে যাওয়ায় আপাতত বিষয়টা বাড়াতে চাইছেন না তারা, “প্রশ্নই উঠে না। (সাকিবের মেজাজ বুঝে চলা)। যেহেতু পরশু দিন দল চলে যাচ্ছে এটা নিয়ে তাই বেশি কিছু বলতে চাইছি না। তবে আমি মনে করি এটা দুঃখজনক।