মাওলানা দেলোয়ার হোসেন সাঈদী ও বেগম জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দিন : জামায়াত

জাতীয়

সিলেটে মহানগর জামায়াতের উদ্যোগে বিশিষ্ট জনদের সম্মানে এক ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জামায়াতের সেক্রেটারী জেনারেল ডাঃ শফিকুর রহমান বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও প্রখ্যাত মুফাসসিরে কোরআন আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান।

শনিবার নগরীর মালঞ্চ কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে বিএনপি ছাড়াও ২০ দলীয় জোটের বিভিন্ন দলের বিভিন্ন পর্যায়ের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জামায়াতের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারী জেনারেল ডা: শফিকুর রহমান বলেন, বাংলাদেশ ভাল নেই।

৫৬ হাজারের বর্গমাইলের পুরো বাংলাদেশ আজ একটি বৃহৎ কারাগারে পরিনত হয়েছে। এদেশে মা-বোনের ইজ্জতের মূল্য নেই, কৃষকের বেছে থাকার অধিকার নেই, যুব সমাজকে নৈতিকভাবে গড়ে তোলার কোন সুযোগ নেই। এভাবে একটি দেশ চলতে পারেনা।

আইয়্যামে জাহেলিয়াতকে ধ্বংস করে দিয়ে ইসলাম বিশ্বব্যাপী মানুষের কল্যানে ইনসাফ প্রতিষ্ঠার জন্য এসেছিল। কুরআন নাযিলের মাস, কুরআনের বিজয়ের মাস মাহে রমজানের শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে ঐক্য অটুট রেখে এদেশে ইসলামী জাগরন তৈরীর সুযোগকে কাজে লাগাতে হবে।

তিনি বলেন, দেশ আমাদের সকলের। এখানে এক দল বা এক ব্যক্তির স্বৈরতান্ত্রিক শাসন চলতে পারেনা। বন্দীদশা থেকে দেশ জাতিকে মুক্ত করতে হবে। জেল জুলুম দিয়ে কোন জাতিকে দীর্ঘ সময় দমিয়ে রাখা যায়না। শাহাদাতের তামান্না নিয়েই আমরা ইসলামী আন্দোলন করি।

নিরীহ নেতৃবৃন্দকে বিচারের নামে শহীদ করা হয়েছে, হাজার হাজার যুবককে পঙ্গু করে দেয়া হয়েছে, অনেকের হাত-পা ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে, চোখ উপড়ে ফেলা হয়েছে। এসব করে কোন আদর্শকে ধ্বংস করা যায়না। আজকে জনগণকে গোলামীর জিঞ্জিরে আবদ্ধ করা হয়েছে। এদেশের মানুষের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠারের সংগ্রাম চলবেই।

ডা: শফিকুর রহমান বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তিন বারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। কুরআনের পাখি আল্লাম দেলোয়ার হোসাইন সাঈদী সাহেবকে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। অনেক হয়েছে এবার জুলুম-নিপীড়নের পথ থেকে সরে আসুন। সকল রাজবন্দীদের মুক্তি দিন।

জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও সিলেট মহানগর আমীর এডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের এর সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারী মাওলানা সোহেল আহমদের পরিচালনায় বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলটি একটি মিলন মেলায় পরিণত হয়।

মাহফিলে বিশিষ্ট আইনজীবি, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষক, সিলেটে কর্মরত ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সংবাদ কর্মী, কবি, সাহিত্যিক, চিকিৎসক এর পাশাপাশি সমমনা রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।

মাহফিলে দেশ-জাতির মঙ্গল ও জাতীয় নেতৃবৃন্দের মুক্তি-সুস্থতা কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য সাবেক এমপি অধ্যক্ষ মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী।

ক্বারী আবুল হাসনাত বেলালের পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে সুচীত মাহফিলে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী,

খেলাফত মজলিসের সিনিয়র নায়েবে আমীর ভাষা সৈনিক অধ্যক্ষ মাসউদ খান, জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও সিলেট বিভাগের আঞ্চলিক দায়িত্বশীল অধ্যাপক ফজলুর রহমান, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমীর মাওলানা রেজাউল করিম জালালী,

সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন, সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মুকতাবিস উন নুর, সিলেট জেলা দক্ষিণ জামায়াতের আমীর অধ্যক্ষ আব্দুল হান্নান, জেলা উত্তরের আমীর হাফিজ আনোয়ার হোসাইন খান, সিলেট মহানগর নায়েবে আমীর হাফিজ আব্দুল হাই হারুন।

মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্ঠা ড. মো ইনামুল হক চৌধুরী, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ লে: কর্ণেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ ও অধ্যাপক আব্দুল আহাদ, জামায়াতের কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরা সদস্য মাওলানা হাবীবুর রহমান, সিলেট মহানগর জামায়াতের নায়েবে আমীর মো: ফখরুল ইসলাম,

জেলা দক্ষিণের নায়েবে আমীর মাওলানা লোকমান আহমদ ও সেক্রেটারী মোঃ নজরুল ইসলাম, জেলা উত্তরের সেক্রেটারী মাওলানা জয়নাল আবেদীন, সিলেট মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি ও কাউন্সিলার রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, জমিয়তের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী, খেলাফত মজলিসের সিলেট মহানগর সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ আব্দুল হান্নান তাপাদার,

এলডিপির সিলেট জেলা সভাপতি সায়েদুর রহমান চৌধুরী রুপা, লেবার পাটির সিলেট মহানগর সভাপতি মাহবুবুর রহমান খালেদ, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি-পার্থ) মোজাম্মেল হোসেন লিটন, জাগপা সিলেট জেলা সভাপতি শাহজাহান আহমদ লিটন, এনডিপি সিলেট জেলা সভাপতি আনিসুর রহমান,

জমিয়তের সিলেট মহানগর সহ-সভাপতি মাওলানা মাহমুদুল হাসান, ইসলামী ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব মুফতী ফয়জুল হক জালালাবাদী, ইসলামী ঐক্যজোট সিলেট জেলা সভাপতি মাওলানা আসলাম রহমানী ও মহানগর সভাপতি মাওলানা জহুরুল হক, নেজামে ইসলাম পার্টি সিলেট জেলা সভাপতি মুফতী আবু ইউসুফ চৌধুরী,

কাউন্সিলার আব্দুর রকিব তুহিন, কাউন্সিলার সোহেল আহমদ রিপন, কাউন্সিলার এবিএম জিল্লুর রহমান উজ্জল, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ আল হোসাইন, জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন, গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হাফিজ নজমুল ইসলাম,

দৈনিক জালালাবাদের নির্বাহী সম্পাদক আব্দুল কাদের তাপাদার, সিলেট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ ও সিনিয়র সহ-সভাপতি এনামুল হক জুবের, সিলেট মহানগর জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী মো: আব্দুর রব, শাহজাহান আলী ও ড. নুরুল ইসলাম বাবুল প্রমুখ।

ভাষা সৈনিক অধ্যক্ষ মাসউদ খান বলেন, বাংলাদেশ হচ্ছে ইসলামী আন্দোলনের জন্য সম্ভাবনাময় জনপদ। তাই ইসলামী আন্দোলনের সকল দলের নেতাকর্মীদের একে অপরকে নিজের প্রতিদ্বন্ধী নয় সহায়ক শক্তি হিসেবে ভাবতে হবে। তাহলে দেশ ও জাতির কল্যান নিশ্চিত হবে।

সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, সিয়াম সাধনার মাস মাহে রমজানের শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে বিভাজন-বিভক্তির রাজনীতি পরিহার করতে হবে। সকলে মিলে এই নগরী ও এই দেশকে নিজেদের মত করে সাজানোর প্রতশ্রুতি গ্রহণ করি।

সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন বলেন, জালিমের সীমাহিন জুলুম থেকে জাতিকে রক্ষা ঐক্যের বিকল্প নেই। যতই ষড়যন্ত্র আসুক না কেন, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম থেকে আমাদের দমিয়ে রাখা যাবেনা।

সভাপতির বক্তব্যে এডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের বলেন- পবিত্র মাহে রমজান হচ্ছে কোরআন নাজিলের মাস। এই পবিত্র মাসে ইসলামের প্রাথমিক এবং চুড়ান্ত বিজয় নিশ্চিত হয়েছিল। তাই আত্মশুদ্ধির মাস মাহে রমজান থেকে শিক্ষা নিয়ে সা¤্রাজ্যবাদী ও আধিপত্যবাদীদের হাত থেকে দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় দৃঢ় শপথ নিতে হবে। সকল জুলুম নিপীড়ন উপেক্ষা করেই মানুষের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় দেশপ্রেমিক জনতার সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে।